ইপসম সল্ট: স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য চর্চায় জাদুকরী প্রোডাক্ট ইপসম সল্ট

0
1048
ইপসম সল্ট

ইপসম সল্ট কিঃ
খাবারে যে লবণ খাই তা ইপসম লবণ নয়।  যুক্তরাজ্যের ইপসম এলাকায় এর উৎপাদন বলে একে ইপসোম সল্ট বলে ডাকা হয়। এর নাম যদিও সল্ট বা লবণ কিন্তু এটি লবণ না। এটা এক ধরনের প্রাকৃতিক খনিজ মিনারেলের যৌগ যা মাটির নিচের খনি থেকে প্রাপ্ত, সর্বোৎকৃষ্ট বাথ সল্ট। গবেষণায় দেখা গেছে, এর ম্যাগনেসিয়াম এবং সালফেট খুব দ্রুত ত্বকে ঢুকে যায়। এটি একটি যাদুকরী পন্য যা একের মধ্যেই মন ও শরীরের থেরাপিউটিক সমাধান (Mind & Body Therapeutic Solution) রয়েছে নিহিত।

১৬১৮ সাল থেকে মন ও শরীরের থেরাপিউটিক সমাধান (Mind & Body Therapeutic Solution) হিসেবে এটি ব্যবহৃত হচ্ছে। এর ব্যবহারে রয়েছে অনেক ধরনের স্বাস্থ্যগত ও সৌন্দর্য চর্চায় উপকারিতা।

এক নজরে উপকারিতাসমুহঃ
– ত্বককে নরম,উজ্জ্বল, মসৃণ, মশ্চারাইজ ও ত্বকের সানবার্ন দূর করে
– শরির ও অঙ্গ- প্রতঙ্গের বাত, ব্যাথা ও আর্থ্রাইটিস কমায়
– শরিরকে ডিটক্স ও অঙ্গ- প্রতঙ্গের ফুলা কমায়
– মাংসপেশি ও নার্ভাস সিস্টেমকে শিথিল করে ও মনকে চাঙ্গা করে
– ডায়াবেটিস কমায় ও খাদ্যকে শক্তিতে রুপ দেয়
– মানসিক স্ট্রেস,অবসাদ বা নিদ্রাহীনতা দূর করে
– হার্ট ও রক্তচাপ স্বাভাবিক রেখে হৃদরোগ ও স্ট্রোকে বাঁধা দেয়
– ডেডসেল ও ব্ল্যাকহেড,চুলকানি,ইনফেকশন ও অন্যান্য চর্মরোগ  দূর করে
– ম্যাগনেসিয়াম ও সালফেটের ঘাটতি কমায়
– কোষ্ঠকাঠিন্য, হজমে সমস্যা এবং পায়ের দুর্গন্ধ ও রুক্ষতাকে দূর
– এজমা,গল ব্লাডার ও লিভার ক্লিঞ্জিং করে
– গাছের ও মাছের স্বাস্থ্য ভালো রাখে
– স্ক্রাব,ফেসওয়াস, সাওয়ার জেল,লোসন ব্যবহার করা হয়
– ক্রীড়া ও ব্যায়ামের পর ব্যাবহারে ভালো ফল দেয়
– শরীর ফুলা কমায়
– গাছের ও মাছের স্বাস্থ্য ভালো রাখে

সারা বিশ্বে যে কয়েক ধরনের বাথ সল্টের প্রচলন রয়েছে, তার মধ্যে একে সর্বোৎকৃষ্ট বাথ সল্ট বলা হয়। এ ইপসোম সল্ট আজকাল খেলাধুলা ও ব্যায়ামের পরে পাশ্চাত্যে অত্যাবশ্যকীয় একটি পণ্যে পরিণত হয়েছে। সাধারন মানুষ এর ব্যাবহার সম্পর্কে ওয়াকিবহাল। তাই বাথ সল্ট হিসেবে এটি ব্যাবহারের জন্য সাধারণত ডাক্তারের প্রেসক্রিপশনের দরকার হয় না। ব্রিটেনে বিভিন্ন সুপার সপ, ফার্মেসীতে ও দোকানে পাওয়া যায়। উপমহাদেশে এর ব্যাবহার সম্পর্কে সর্বসাধারণ না জানলেও চিকিৎসকরা ইদানিং ভারত ও বাংলাদেশে তাঁদের প্রেসক্রিপশনের নোটে লিখে দিচ্ছেন এবং ইন্টারনেটের বদৌলতে বাংলাদেশে মানুষও এ ব্যাপারে সম্যক জ্ঞান পাচ্ছেন।

বাজারে দুই ধরনের গ্রেড পাওয়া যায়: ১) ইন্ডাস্ট্রিয়াল গ্রেড /সার গ্রেড, ২) বিপি গ্রেড/ফুড গ্রেড।  

১) ইন্ডাস্ট্রিয়াল গ্রেড /সার গ্রেড: গাছের সার হিসেবে এর ব্যাপক ব্যাবহার আছে। এটা মানুষ বা প্রাণীর  ব্যবহার উপযোগী নয়। সাধারনত একে ম্যাগনেসিয়াম সালফেট বা সংক্ষেপে ম্যাগ-সাল/ ম্যাগ সার বলা হয়ে থাকে।

২) বিপি গ্রেড/ ফুড গ্রেড: এটা মানুষ বা প্রাণীর জন্য। গোসলের সময় এটি ব্যাপক ভাবে প্রচলিত বিদায় একে বাথ সল্ট নামেও ডাকা হয়। বিভিন্ন রোগের ঔষধ তৈরির কাঁচামাল হিসেবে মেডিসিন শিল্পে এর ব্যাপক চাহিদা আছে। এটা খনিজ পদার্থ হিসেবে প্রাকৃতিক খনি থেকে হয় আবার কেমিক্যাল দিয়ে তৈরি করা যায় ল্যাবরেটরীতে। প্রাকৃতিকভাবে খনি থেকে উত্তোলিত যেটা সেটার কার্যকারিতা বেশি, তবে দাম বেশী। এ গ্রেড গাছ ও মাছের জন্য ও ব্যাবহার করা যায়।

বিপি গ্রেড/ ফুড গ্রেডের ম্যাগনেসিয়াম সালফেটকে ইপসোম সল্ট হিসেবে ডাকা হয় এবং বিশ্বে এ নামকরন বেশি গ্রহনযোগ্য। বাংলাদেশে অনেকে ইন্ডাস্ট্রিয়াল গ্রেড /সার গ্রেডকে ইপসোম সল্ট হিসেবে ডাকার চেষ্টা করলেও এটা আসলে সারা বিশ্বে ম্যাগনেসিয়াম সালফেট সার ( Magnesium Sulfate Fertiliser )  নামেই সমাদৃত ও ম্যাগনেসিয়াম সালফেট সার নামে ডাকাই শ্রেয়। ব্যাবহারের ভিন্নতা থাকায় আলাদা নামকরনই মানুষের জন্য সহজ হবে।  

আরও পড়ুনঃ   সামুদ্রিক মাছ খাওয়ার যত স্বাস্থ্য গুনাগুন

ইপসম সল্ট এর উপকারিতা-
ইপসোম সল্ট ১০১ ধরনের উপকার করে। যেমন
১। কোমর,হাঁটু, গোড়ালি,হিল,পেশী ও শরীরের অন্যান্য স্থানের ব্যাথা কমায় ও ব্যাথা হওয়া থেকে সুরক্ষা দেয়। মাইগ্রেন এর মাথাব্যথা দূর করতে সাহায্য করে। ডেঙ্গু ও চিকনগুনিয়ার ফলে শরীরের বিভিন্ন স্থানের ব্যাথা ও অস্বস্তি উপশম করে ।
২। এর সালফেট শরিরের দূষিত পদার্থ গুলোকে বের করে দেয় ( ডিটক্স – Detox) ও শরিরে পুষ্টি শোষিত করে এবং খাদ্যকে শক্তিতে রুপান্তরিত করে। শরিরের ম্যাগনেসিয়াম এবং সালফেটের লেভেলকে বুস্টিং করে।

৩। এর ম্যাগনেসিয়াম মাংসপেশি ও নার্ভাস সিস্টেমকে শিথিল করে (রিলেক্স/ Relax) এবং কার্যকারিতা বাড়ায়।৪। এর ম্যাগনেসিয়াম মানসিক চাপ (স্ট্রেস/ Stress), অবসাদ বা মন খারাপকে দূর করে মনকে চাঙ্গা করে ও শরীরকে শান্ত ও রিলাক্স করে।

৫। ম্যাগনেসিয়াম এবং সালফেট শরিরের ইন্সুলিন কে সঠিক ভাবে কাজ করতে সাহায্য করে ফলে ডায়াবেটিস এর লেভেল কে কমিয়ে রাখে।

৬। হার্টের সক্ষমতা বৃদ্ধি করে, অনিয়মিত হার্টবিট (হৃদকম্পন) নিয়ন্ত্রণে ভূমিকা রাখে, রক্তচাপকে স্বাভাবিক রাখতে সহয়তা করে ও শরীরের ওজন কমিয়ে শরীরকে সচল করতে সহায়তা করে।
৭। ত্বক: ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা দূর করে। পানির সাথে কিছুটা Epsom Salt মিশিয়ে আপনার ত্বকে রাব করলে সানবার্নই দূর করবে না, ত্বককে করবে মসৃণ, উজ্জ্বল, নরম এবং দিবে পর্যাপ্ত পরিমাণ আদ্রতা বা মশ্চারাইজ। ত্বকের চুলকানি থেকে মুক্তি দেয়।ব্রনের চিকিৎসায় কাজ করে। স্প্লিন্টার অপসারণে সাহায্য করে।
৮। নিদ্রাহীনতা, এনজাইটি, ডিপ্রেশন সহ অন্যান্য মানসিক রোগে সহায়তা করে
৯। শরীরের ডেড সেল দূর করতে সাহায্য করে। ইপসোম সল্ট এ বাথ অয়েল বা ক্যারিয়ার অয়েল দিয়ে শরীর এবং মুখে এক্সফলিয়েট করা যায়।
১০। ব্ল্যাকহেড: আধা কাপ গরম পানিতে ১ চা চামচ ইপসোম সল্ট, ৩ ফোটা আয়োডিন মিশিয়ে, তুলার সাহায্যে ব্ল্যাকহেড এর উপর দিলে ব্ল্যাকহেড দূর হয়।
১১। এক গামলা পানিতে ৪- ৬ চা চামচ ইপসোম সল্ট দিয়ে, ১০ মিনিট পা ভিজিয়ে রাখলে পায়ের দুর্গন্ধ দূর হয় ও পায়ের রুক্ষ ত্বককে নরম করে। ৩০ মিনিট রাখলে পায়ের ব্যাথা কমে।
১২। প্রেগ্নেন্সি বা অন্য কোন কারনে হাত- পা বা দেহের অন্য কোন অংশ ফুলে গেলে ( Edema ) সহায়তা করে।
১৩। বিভিন্ন প্রসাধনী যেমনঃ স্ক্রাব, ফেস ওয়াস, সাওয়ার জেল, লোসন তৈরিতে ব্যবহারিত হয়।
১৪। ম্যাগনেসিয়াম সালফেট এর অভাবে মানুষের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হতে পারে তা দূর করে এবং তা হতে বাধা দেয়
১৫। নখে ফাঙ্গাল সমস্যা থাকলে পানিতে ই্পসোম সল্ট দিয়ে নখ ভিজালে ফাঙ্গাল সমস্যা দূর হয়।
ডাক্তারের পরামর্শেঃ
১৬। শরীরে চিকনগুনিয়া বা অন্য কারনে ম্যাগনেসিয়াম সালফেটের ঘাটতি দেখা দিলে
১৭) গল ব্লাডার ও লিভার ক্লিঞ্জিং এ
১৮) ইনফেকশন দুরীকরনে গরম পানিতে মিশিয়ে ব্যাবহার করা হয়।

অন্যান্যঃ
১৯) গাছের ও মাছের স্বাস্থ্য ভালো রাখায় এর ব্যবহার রয়েছে।

গোসলে কিভাবে ব্যবহার করবেনঃ
এক বালতি পানিতে ৬ থেকে ১০ চা চামচ সল্ট মিশ্রণ করুন,সল্ট পানিতে মিশে গেলে ২০ মিনিট শরীর ভিজিয়ে গোসল করুন। সপ্তাহে ১- ৩ বার করতে পারেন।

আরও পড়ুনঃ   ফল সবজি ও মসলার পুষ্টিগুণ

অথবা, যেভাবে ব্যবহার করবেন

বাথটবে বা এক বালতি স্নানের জলে ৩০০-৪০০ গ্রাম এপসম সল্ট মিশিয়ে নিন। কিংবা হাতে এক থেকে দু চামচ সল্ট নিয়ে ভালো করে ম্যাসাজ করুন। এতে রক্ত চলাচল ভালো হয়।

সতর্কতাঃ  শীতল ও শুকনো জায়গায় বোতলের সিল লাগিয়ে রাখুন, কারণ সময়ের সাথে সাথে লবণে আর্দ্রতা আকর্ষণ করতে পারে। মেডিক্যাল কন্ডিশসন, গর্ভবতী, বুকের দুধ খাওয়ানো বা খুব সংবেদনশীল ত্বকে ব্যবহারের আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। কাটা বা ফাটা ত্বকে ব্যবহার করবেন না। চোখের সংস্পর্শে না আসে তার জন্য সাবধান থাকুন। চোখে জ্বালা দেখা দিলে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। যদি এটি অব্যাহত থাকে তবে চিকিত্সার সহায়তা নিন। শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন।

কোথায় পাবেনঃ 

বিডি হেলথ শপ ভিজিট করে দেখুন-ফুড গ্রেড

লেখকঃ সৈয়দা জাকিয়া সুলতানা, স্বাস্থ্য বিষয়ক পেশাজীবী, লন্ডন, যুক্তরাজ্য।

  • Relieves stress
  • Feeling of well being
  • Fresh and relax felling
  • Improves nerve function
  • Help turns food into energy
  • Form Strong bones and teeth
  • Increase muscle function
  • Skin softener
  • Pain Relief From Dengue or Chikungunya Fever
  • Improve heart
  • Improve circulatory health ( electrical current , calcium levels in the blood
  • reducing irregular heartbeats,
  • preventing hardening of the arteries,
  • reducing blood clots
  • lowering blood pressure
  • reducing severity of diabetes
  • Relief muscle pain
  • Draws out toxins
  • Best Bath Salt
  • Barcode: 5060559600132

Thereare 101 uses for the Epsom Salt ranging from bath salts to a skin softener to cleaning your bathroom tiles. It is also used in the gardening world to correct magnesium deficiencies in soils and plants.Researchers and physicians report that raising your magnesium levels may: Improve heart and circulatory health, reducing irregular heartbeats, preventing hardening of the arteries, reducing blood clots and lowering blood pressure.
• Epsom Salt relieves stress. Excess adrenaline and stress are believed to drain magnesium, a natural stress reliever, from the body. Magnesium is necessary for the body to bind adequate amounts of serotonin, a mood-elevating chemical within the brain that creates a feeling of well being and relaxation
• Epsom Salt improves the body’s ability to use insulin, reducing the incidence or severity of diabetes.
• Epsom Salt flushes toxins and heavy metals from the cells, easing muscle pain and helping the body to eliminate harmful substances.
• Epsom Salt improves nerve function by regulating electrolytes. Also, calcium is the main conductor for electrical current in the body, and magnesium is necessary to maintain proper calcium levels in the blood.

While increasing your magnesium levels, Epsom salt also delivers sulfates, which are extremely difficult to get through food but which readily absorb through the skin. Medical research indicates sulfates are needed for the formation of brain tissue, joint proteins and the mucin proteins that line the walls of the digestive tract. Sulfates also stimulate the pancreas to generate digestive enzymes and help to detoxify the body’s residue of medicines and environmental contaminants.
Storage :
Keep sealed in a cool, dry place sothat salt can not attract moisture.

আরও পড়ুনঃ   মটরশুটির এত পুষ্টিগুণ!

Indications:
Seek advice of a healthcare professional before use suffering from a medical condition, pregnant, breastfeeding or have very sensitive skin. Do not use on broken skin. Avoid contact with eyes. If irritation occurs, rinse with water. If it persists, seek medical attention. Keep out of reach of children.

Expiry Date:
The salts have no real expiry date as such, as long as you store them correctly in a cool place away from direct sunlight and moisture.

HOW TO USE:
Take a cup full to upto 1Kg and soak in the bath for at least 20 minutes, great after high impact sports or repetitive sports where strains can occur.

Sore Muscles:

Make compresses by soaking a cotton washcloth in cold water that has been mixed with Epsom salt (2 tablespoons per cup), then apply to the skin.

Create a paste to apply to the skin by adding a teaspoon of Epsom salt to about a cup of hot water until it dissolves, then chill the solution in the fridge for 20 minutes. Note: Clean the skin and pat dry before applying the paste.

Take an Epsom salt bath, by adding 2 cups of Epsom salt to the water in a standard-sized bathtub and soaking for at least 15-20 minutes. The salt dissolves quicker if you pour it under running water.

Soaking:

Epsom salt is a popular remedy for easing muscle pain and fading bruises. Add 1 Tablespoon(approx 80g) of bath salt to warm water in a standard-sized bath Bucket(increase it if you have a larger bath). Bathe 2-3 times weekly, soaking for at least 15-20 minutes.

Foot Bath :

Soothe your aching feet with a bath salt balm. Simply create an Epsom Salt bath by pouring 50ginto a samall tub/bowl/foot spa of warm water.

Pedicure:

Mix 40grmcup of Epsom salt with warm, soapy water.

Soak feet to soften skin.

Remove polish, cut and file nails and calluses.

Soak feet in an Epsom salt bath for 5 minutes.

Spa Treatment:

During showerafter wet body, massage handfuls of Epsom salt over wet skin to exfoliate the body.

Exfoliation:

For exfoliation, mix 8 : 1of Epsom salt and petroleum jelly and a few drops of lavender essential oil. Use the mixture to
gently scrub away dry skin patches.

Facial:

Mix 1/2 tsp of Epsom salt into cleansing cream for deep-pore cleansing. Massage on skin, rinse with cool water and pat dry.

Hazards and Cautions:
Store sealed in a cool, dry place as over time salt can absorb moisture.

Do not use on broken skin. Avoid contact with eyes. Not suitable for use on babies or infants. Do not use when pregnant.

আরো পড়ুনঃ

এপসম সল্ট কি? এপসম সল্টের ১৯টি বিস্ময়কর উপকারিতা জেনে নিন 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

2 × four =